English Arabic French German Hindi Italian Portuguese Russian Spanish

Related Article

Sweden Protest for Tpaimukh

Print
AddThis Social Bookmark Button

 

এবার সুইডেনে অধ্যয়নরত বাংলাদেশী ছাত্ররা ভারতের টিপাইমুখ বাধ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও গণসাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচি গ্রহন করেছে।
গতকাল বুধবারে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোম থেকে প্রায় ৬০০ কি.মি. উত্তর দিকে অবস্থিত উমিয়া শহরে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। এতে বাংলাদেশী ছাড়াও বিভিন্ন দেশের ছাত্ররা একাত্ততা ঘোষনা করে।
মানববন্ধন কর্মসূচির প্রধান আয়োজক এবং Ecology & Environmental Science Depertment এর ছাত্র নাজমুল আলম বলেন টিপাইমুখ বাধ নিয়ে আমাদের অবশ্যই চিন্তা করতে হবে এই জন্য যে, ভারত যেন ফারাক্কার মত আর কোনো মরণ বাধ করতে না পারে। আমরা সচেতন বাংলাদেশী ছাত্ররা এই -১৫ ডিগ্রী তাপমাত্রাতেও ক্লাসরুম ছেড়ে বাহিরে বেরিয়ে এসে প্রতিবাদ স্বরুপ মানববন্ধন করছি এবং সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি যে ভারতের টিপাইমুখ বাধ বন্ধ করতে সরকার সর্বাত্মক কুটনৈতিক চেষ্টার মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
বাংলাদেশ থেকে হাজার মাইল দূরে সুইডেনের উমিউ ইউনিভার্সিটির অন্য আর একজন ছাত্র সাইফুল বাদল বলেন, "আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী কোনো নদীর উজানে বাধ দেয়া বেআইনী। ভারত আইন অমান্য করলে আমরা আান-র্জাতিক আদালতে আমাদের যেতে হবে। তিনি বলেন যেকোন মূল্যে টিপাইমুখ বাধ নির্মান প্রতিহত করতে হবে। এটি কোন রাজনৈতিক ইস্যু নয়, দেশের স্বার্থেই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে, যেমন আমরা আজ সুইডেনে এসেও বসে থাকতে পারছিনা।"
সবাইকে এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিত, নয়তো ফারাক্কা বাঁধে যেভাবে উত্তরবঙ্গ মরুভুমিতে পরিনত হয়েছে, তেমনি টিপাইমুখ বাঁধে বৃহত্তর সিলেট মরুভূমিতে রূপ নিবে।

এবার সুইডেনে অধ্যয়নরত বাংলাদেশী ছাত্ররা ভারতের টিপাইমুখ বাধ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও গণসাক্ষর সংগ্রহ কর্মসূচি গ্রহন করেছে।

গতকাল বুধবারে সুইডেনের রাজধানী স্টকহোম থেকে প্রায় ৬০০ কি.মি. উত্তর দিকে অবস্থিত উমিয়া শহরে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। এতে বাংলাদেশী ছাড়াও বিভিন্ন দেশের ছাত্ররা একাত্ততা ঘোষনা করে।

 

মানববন্ধন কর্মসূচির প্রধান আয়োজক এবং Ecology & Environmental Science Depertment এর ছাত্র নাজমুল আলম বলেন টিপাইমুখ বাধ নিয়ে আমাদের অবশ্যই চিন্তা করতে হবে এই জন্য যে, ভারত যেন ফারাক্কার মত আর কোনো মরণ বাধ করতে না পারে। আমরা সচেতন বাংলাদেশী ছাত্ররা এই -১৫ ডিগ্রী তাপমাত্রাতেও ক্লাসরুম ছেড়ে বাহিরে বেরিয়ে এসে প্রতিবাদ স্বরুপ মানববন্ধন করছি এবং সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি যে ভারতের টিপাইমুখ বাধ বন্ধ করতে সরকার সর্বাত্মক কুটনৈতিক চেষ্টার মাধ্যমে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

 

বাংলাদেশ থেকে হাজার মাইল দূরে সুইডেনের উমিউ ইউনিভার্সিটির অন্য আর একজন ছাত্র সাইফুল বাদল বলেন, "আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী কোনো নদীর উজানে বাধ দেয়া বেআইনী। ভারত আইন অমান্য করলে আমরা আান-র্জাতিক আদালতে আমাদের যেতে হবে। তিনি বলেন যেকোন মূল্যে টিপাইমুখ বাধ নির্মান প্রতিহত করতে হবে। এটি কোন রাজনৈতিক ইস্যু নয়, দেশের স্বার্থেই সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে, যেমন আমরা আজ সুইডেনে এসেও বসে থাকতে পারছিনা।"

 

সবাইকে এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিত, নয়তো ফারাক্কা বাঁধে যেভাবে উত্তরবঙ্গ মরুভুমিতে পরিনত হয়েছে, তেমনি টিপাইমুখ বাঁধে বৃহত্তর সিলেট মরুভূমিতে রূপ নিবে।

 

 

| + - | RTL - LTR